মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
পাতা

ত্রাণ ও পূণবাসন

গ্রামীণ অবকাঠামো সংস্কার(কাবিখা) কর্মসূচীঃ

 

এই কর্মসূচীতে পুকুর/খাল খনন বা পুনঃখনন, রাসত্মা নির্মাণ/পুনঃনির্মাণ, রাসত্মা-বাঁধ নির্মাণ/পুনঃনির্মাণ, জ্বলাবদ্ধতা দূরীকরণের জন্য নালা ও সেচ নালা খনন/পুনঃখনন, বিভিন্ন জনকল্যাণ মূলক প্রতিষ্ঠানের মাঠে মাটি ভরাট, মাটির কিল্লা নির্মাণ/পুনঃনির্মাণ ইত্যাদি কাজ করা হয়।

এই কাজের জন্য প্রতিটি প্রকল্পের সর্বনিম্ন ৬.০০ মেঃটন বরাদ্দ দেওয়া হয়।

 

 

গ্রামীণ অবকাঠামো রক্ষণাবেক্ষণ (টি,আর) কর্মসূচীঃ

 

এই কর্মসূচীর আওতায় নিম্নবর্ণিত কাজ করা হয়ঃ-

(ক) বিগত বছরের বাস্তবায়িত কাবিখা প্রকল্পের  রক্ষণাবেক্ষণ কাজ ।

(খ) বাধ ও রাস্তা মেরামত।

(গ) নালা নির্মাণ/সংস্কার, নর্দমা খনন এবং সংরক্ষণ।

(ঘ) শিক্ষা/জনকল্যাণ মূলক প্রতিষ্ঠান সমূহ মেরামত/উন্নয়ন।

(ঙ) সেনেটারী ল্যাট্রিন নির্মাণ সহ জনস্বাস্থ্য এবং পরিবেশ উন্নয়ন কল্পে জনহিত কাজ।

(চ) গ্রামীণ যাতায়ত ব্যবস্থার সুবিধার্থে বাঁশ/কাঠের সাঁকো নির্মাণ।

 

দৈনিক ৭.০০(সাত) ঘন্টা কাজের বিনিময়ে ৮.০০(আট) কেজি চাউল/গম এর বিনিময়ে কাজের পরিমাণ ৫৮ ঘনফুট।

 

এই কর্মসূচীতে প্রতিটি প্রকল্পে সর্বনিম্ন ১.০০০ মেঃটন এবং সর্বোচ্চ ৫.০০ মেঃটন গম/চাউল বরাদ্দ করা হয়।

 

 

 

‘‘ অতি দরিদ্রদের জন্য কর্মসংস্থান ’’কর্মসূচীঃ

 

‘‘অতি দরিদ্রদের জন্য কর্মসংস্থান’’ কর্মসূচী প্রতি বছর নভেম্বর-ডিসেম্বর ও মার্চ-এপ্রিল মাসে ১ম ও ২য় পর্যায়ে ৪০ (চল্লিশ) দিন করে ৮০ (আশি) দিন কাজ হয়।

প্রতি কার্ডে ৪০দিনে ০১ জন লেবার দৈনিক ৭ ঘন্টায় ৩৫ঘনফুট মাটির কাজের জন্য ১৭৫/-(একশত পঁচাত্তর) মজুরী পাবে।

#এই কর্মসূচীতে পুকুর/খাল খনন বা পুনঃখনন, রাস্তা নির্মাণ/পুনঃনির্মাণ, রাস্তা-বাঁধ নির্মাণ/পুনঃনির্মাণ, জ্বলাবদ্ধতা দূরীকরণের জন্য নালা ও সেচ নালা খনন/পুনঃখনন, বিভিন্ন জনকল্যাণ মূলক প্রতিষ্ঠানের মাঠে মাটি ভরাট, মাটির কিল্লা নির্মাণ/পুনঃনির্মাণ ইত্যাদি কাজ করা হয়।

 

বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির অধীনে গ্রামীন রাস্তায় ছোট ছোট(১২ মিটার দৈর্ঘ্য পর্যন্ত) সেতু/কালভার্ট নির্মান প্রকল্পঃ

বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির অধীনে গ্রামীন রাস্তায় ছোট ছোট(১২ মিটার দৈর্ঘ্য পর্যন্ত) সেতু/কালভার্ট নির্মান প্রকল্পের অধীন ৩৩ ফুট হতে ৪০ ফুট দৈর্ঘ্যের সেতু নির্মান করা হয়।

 

ঢেউটিন বরাদ্দঃ

(ক) প্রাকৃতিক দূর্যোগের ক্ষতিগ্রস্থ প্রতিষ্ঠান, যেমনঃ-     স্কুল/কলেজ/মাদ্রাসা/এতিমখানা/মসজিদ/মন্দির/গীর্জা/পাঠাগার ইত্যাদির জন্য এককালীণ ২-৭ বান্ডিল ঢেউটিন শর্তসাপেক্ষে বরাদ্দ করা হয়।

(খ) ঘূর্ণঝড়/অগ্নিকান্ড/বন্যা/নদীভাঙ্গন/জলোচ্ছ্বাস/ভূমিকম্প ইত্যাদি বিভিন্ন দূর্যোগের ক্ষতিগ্রস্থ এবং সম্পূর্ণ ভাবে ধ্বংস প্রাপ্ত বাঁসগৃহ/দোকান/ওয়ার্কশপ মেরামতের জন্য পরিবার প্রতি ২-৩ বান্ডিল ঢেউটিন শর্তসাপেক্ষে দেওয়া হয়।

 

জি.আর বরাদ্দঃ-

জি.আর চাল

 

 (ক) কালবৈশাখী/ঘূর্ণীঝড়/অগ্নিকান্ড/বন্যা/নদীভাঙ্গন/জলোচ্ছ্বাস/ভূমিকম্প ইত্যাদি বিভিন্ন প্রাকৃতিক দূর্যোগে ক্ষতিগ্রস্থ এবং দুঃস্থ ব্যক্তি/পরিবারের তাৎক্ষণিক সাহায্য হিসাবে পরিবার প্রতি এককালীণ সর্বোচ্চ ২০(বিশ) কেজি খাদ্যশস্য (চাল/গম) শর্তসাপেক্ষে বিতরণ/বন্টন করা যাবেঃ-

(ক) দরখাস্ত সংশ্লিষ্ট মাননীয় জাতীয় সংসদ সদস্য/সিটি কর্পোরেশনের প্রধান/উপজেলার চেয়ারম্যান/উপজেলা নির্বাহী অফিসার/পৌরসভার মেয়র/ইউ.পি চেয়ারম্যান কর্তৃক সুপারিশকৃত হতে হবে। 

 

জি.আর টাকা

 

 (ক)কালবৈশাখী/ঘূর্ণীঝড়/অগ্নিকান্ড/বন্যা/নদীভাঙ্গন/জলোচ্ছ্বা/ভূমিকম্প/বজ্রপাত/নৌকা/লঞ্চ/ট্রলারডুবি/সড়ক দুর্ঘটনায় কোন ব্যক্তি আহত হলে বা অকাল মৃতুবরণ করলে এবংউক্ত ব্যক্তির পরিবার অসচ্ছল হলে পরিবার প্রতি বিশেষ বিবেচনায় তাৎক্ষণিকভাবে সংশ্লিষ্ট জেলা প্রশাসক কর্তৃক ---

(ক) মৃত ব্যক্তির পরিবার প্রতি সর্বোচ্চ ১০,০০০/-(দশ হাজার) টাকা থেকে ২০,০০০/- (বিশ হাজার) টাকা বরাদ্দ করা যাবে।

(খ) আহত ব্যক্তির চিকিৎসার জন্য সর্বোচ্চ ৫,০০০/-(পাঁচ হাজার) টাকা বরাদ্দ করা যাবে।

 

গৃহবাবদ মঞ্জুরী

 

(ক)কালবৈশাখী/ঘূর্ণীঝড়/অগ্নিকান্ড/বন্যা/নদীভাঙ্গন/জলোচ্ছ্বা/ভূমিকম্প/বজ্রপাতে সম্পূর্ণ ক্ষতিগ্রস্থ ঘরবাড়ীর ক্ষেত্রে পরিবার প্রতি সর্বোচ্চ ১০,০০০/-(দশ হাজার) টাকা এবং আংশিক ক্ষতিগ্রস্থ ঘরবাড়ীর ক্ষেত্রে পরিবার প্রতি সর্বোচ্চ ৫,০০০/-(পাঁচ হাজার) টাকা সংশ্লিষ্ট জেলা প্রশাসক কর্তৃক গৃহবাবদ মঞ্জুরী হিসাবে বরাদ্দ করা যাবে।

 

ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ

 

কম্বল/চাঁদর/শীতবস্ত্র ইত্যাদি ত্রাণ সামগ্রী অসচ্ছল পরিবারের মাঝে প্রতি বছর বন্টন/বিতরণ করা হয়।

 

ভি.জি.এফবিতরণঃ-

দূর্যোগকালীন সময়, পবিত্র ঈদ-উল-ফিতর ও ঈদ-উল-আযহার সময়ে ভি.জি.এফ বিতরণ